প্রশ্নপত্র ফাঁস, আদালতে দুই আসামির দোষ স্বীকার

মেডিকেল কলেজে ভর্তি পরীক্ষার প্রশ্নপত্র ফাঁসের মামলায় দুই আসামি দোষ স্বীকার করে আদালতে জবানবন্দি দিয়েছে। অন্য এক আসামিকে ফের ৫ দিনের রিমান্ডে পাঠিয়েছেন আদালত।

সাত দিনের রিমান্ড শেষে তিন আসামিকে গতকাল বৃহস্পতিবার আদালতে হাজির করেন মামলার তদন্ত কর্মকর্তা সিআইডির সিনিয়র সহকারী পুলিশ সুপার কাজী আবু সাঈদ।

দুই আসামি পারভেজ খান ও জাকির হোসেন স্বেচ্ছায় স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দি দিতে রাজি হওয়ায় তা রেকর্ড করার আবেদন করেন তদন্ত কর্মকর্তা। আর জসিমউদ্দিন ভূঁইয়া মুন্নুর ফের ৮ দিনের রিমান্ড আবেদন করা হয়।

আবেদনের পরিপ্রেক্ষিতে ঢাকা মেট্টোপলিটন ম্যাজিস্ট্রেট সারাফুজ্জামান আনচারী আসামি পারভেজ খান ও জাকির হোসেনের স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দি রেকর্ড করেন।  এরপর তাদের কারাগারে পাঠানো হয়েছে।

আরেক মেট্টোপলিটন ম্যাজিস্ট্রেট মইনুল ইসলাম আসামি জসিমউদ্দিন ভূঁইয়া মুন্নুর ৫ দিনের রিমান্ড মঞ্জুর করেন। জসিমউদ্দিনের পক্ষে তার আইনজীবী রিমান্ড বাতিলের আবেদন করলে আদালত তা নাকচ করে দেন।

গত ২৩ জুলাই এ তিন আসামির সাত দিন করে রিমান্ড মঞ্জুর করেন আদালত।

এর আগে ২০ জুলাই মিরপুরের বিভিন্ন এলাকায় অভিযান চালিয়ে এ তিন জনকে গ্রেপ্তার করে সিআইডি। আসামিরা একটি সংঘবদ্ধ চক্র হিসাবে ২০১৩ সাল থেকে ২০১৮ সাল পর্যন্ত বিভিন্ন সময়ে ডিজিটাল পদ্ধতিতে প্রেস থেকে মেডিক্যাল ও ডেন্টাল ভর্তি পরীক্ষার প্রশ্নপত্র অর্থের বিনিময়ে পরীক্ষার আগে শিক্ষার্থীদের সরবরাহ করতো।

মেডিক্যাল ভর্তি পরীক্ষার প্রশ্নপত্র ফাঁসের এই ঘটনায় মিরপুর মডেল থানায় ২০ জুলাই এজাহারনামীয় ১৪ জনসহ অজ্ঞাতনামা ১৫০-২০০ জনকে আসামি করে মামলা করেছে সিআইডি।

নিউজ গার্ডিয়ান/ এমএ/