জয় দিয়ে শুরু টাইগারদের বিশ্বকাপ

সকাল থেকেই মাঠের চারপাশে ছিল উৎসবের আবহ। ওভালের চিরচেনা রঙ পাল্টে গিয়েছিল লাল-সবুজের ছটায়। বাংলাদেশের সমর্থকদের নাচ, গান, বাদ্য আর স্লোগান দিয়ে শুরু যে দিনের, সেটির শেষ অসাধারণ জয়ের বাঁধনহারা উন্মাদনায়। রেকর্ড জুটি, দলের রেকর্ড রান আর সাকিব আল হাসানের রেকর্ড গড়া কীর্তির সিঁড়ি বেয়ে বাংলাদেশ পেয়ে গেল জয়ের ঠিকানা।

দারুণ জয়ে শুরু হলো এবারের বিশ্বকাপে বাংলাদেশের পথচলা। ওয়ানডে র‌্যাঙ্কিংয়ের সাতে থাকা দল ২১ রানে হারিয়েছে তিনে থাকা দক্ষিণ আফ্রিকাকে।

ওভালে রোববার বাংলাদেশকে রেকর্ড রানের উচ্চতায় তুলে নিয়েছিলেন ব্যাটসম্যানরা। দক্ষিণ আফ্রিকার বিপক্ষে প্রথমবার তিনশ ছুঁয়ে, বিশ্বকাপে নিজেদের আগের সর্বোচ্চ পেরিয়ে, বাংলাদেশ গড়ে নিজেদের ওয়ানডে ইতিহাসের সর্বোচ্চ স্কোর, ৩৩০। দক্ষিণ আফ্রিকা লড়াই করেছে, তবে থমকে গেছে ৩০৯ রানে।

ব্যাট করতে নেমে দারুণ সূচনা করে বাংলাদেশের দুই ওপেনার তামিম ইকবাল ও সৌম্য সরকার। ৭ ওভারেই স্কোর বোর্ডে ৫০ রান তোলেন দুই ওপেনার। দলীয় ৬০ রানের মাথায় আন্দিল পেহলিকায়োর বলে ব্যক্তিগত ১৬ রান করে ফেরেন তামিম ইকবাল। তামিম ফিরে গেলে স্থায়ী হতে পারেননি সৌম্য সরকারও। দলের ৭৫ রানের মাথায় ক্রিস মরিসের শিকার হন তিান। ৩০ বলে ৯ চারে ৪২ রান করেন সৌম্য।তৃতীয় উইকেট জুটিতে সাকিব আল হাসান ও মুশফিকুর রহিমের ১৪২ রানের জুটতে বড় সংগ্রহের ভিত গড়ে দেন দলকে। ৭৫ রানে বাংলাদেশ যখন ২ উইকেট হারায় সেখান থেকে দলকে দুজনে মিলে টেনে নিয়ে যান ২১৭ রানে। ইমরান তাহিরের শিকার হয়ে ৮৪ বলে ৮ চার ও এক ছয়ে ৭৫ রানে ফিরে যান সাকিব। সাকিব আউট হলে, ব্যাট করতে নেমে মোহাম্মদ মিথুন করেন ২১ রান। দলকে এগিয়ে নেয়া মুশফিক ৮০ বলে ৮ চারে ৭৮ রান করে দলীয় ২৫০ রানের মাথায় পেহলিকায়োর দ্বিতীয় শিকার হন তিনি। রান।

শেষ দিকে মাহমুদুল্লাহ রিয়াদ ও মোসাদ্দেক হোসেন মিলে ছয় ওভারে তোলেন ৬৬ রান। মোসাদ্দেক ২০ বলে ২৬ রান মরিসের শিকার হন। রিয়াদের ব্যাট থেকে আসে ৩৩ বলে ৩ চা্র ও এক ছয়ে ৪৬ রান। ৪ রান নিয়ে অপরাজিত থাকেন মেহেদি হাসান মিরাজ। শেষ পর্যন্ত ৫০ ওভারে ৬ উইকেট হারিয়ে ৩৩০ রান সংগ্রহ করে বাংলাদেশ।

জবাবে শুরুটা ভালো হলেও দলীয় ৪৯ রানের মাথায় মুশফিকের হাতে রান আউটের শিকার হয়ে ২৩ রান করে ফেরেন ডি কক। ওয়ানডাউনে নেমে দ্বিতীয় উইকেট জুটিতে ৫৩ রান করেন ফাফ ডু প্লেসিস ও অ্যাইডেন মাকরাম। ১০২ রানের মাথায় সাকিবের বলে বোল্ড হয়ে ৪৫ রান করে ফেরেন মাকরাম। ১৪৭ রানের মাথায় (৬২) রান করে মিরাজের শিকার হন ডু প্লেসিস। ৩৮ রান করে ডেভিড মিলার ফেরেন মুস্তাফিজের শিকার হয়ে। এরপর প্রোটিয়ারা নিয়মিত উইকেট হারালে সহজ জয় পায় বাংলাদেশ।

নিউজ গার্ডিয়ান/ এমএ/