জাবির সাবেক ভিসিসহ ১০ জনের সিমের সেবা বন্ধ

ছাত্রলীগ নেতা সাদ্দামকে হুমকির অভিযোগ, সিম বন্ধ

জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়ের সাবেক উপাচার্য সহ ৭ শিক্ষক ও ৩ ছাত্রলীগ নেতার ফোন সিমের সেবা বন্ধ রাখা হয়েছে। তাদের ফোন থেকে ইনকামিং, আউটগোয়িং ও এসএমএস সেবা বন্ধ রাখা হয়েছে। সিমের কার্যকারিতা বন্ধ হওয়া শিক্ষকরা ক্যাম্পাসে দুর্নীতির বিরুদ্ধে চলমান আন্দোলনের সাথে যুক্ত রয়েছেন।

অপরদিকে শাখা ছাত্রলীগের একটি গ্রুপের তিন নেতার ফোনের সেবাও বন্ধ রাখা হয়েছে। এই তিন নেতা কেন্দ্রীয় ছাত্রলীগের সদ্য সাবেক সাধারণ সম্পাদক গোলাম রাব্বানীর সাথে যোগাযোগ রাখেন। এরা হলেন শাখা ছাত্রলীগের সহ-সভাপতি নিয়ামুল হাসান তাজ, যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক সাদ্দাম হোসেন ও সাংগঠনিক সম্পাদক শামীম মোল্লা। এদের মধ্যে রাব্বানীর সাথে সাদ্দামের একটি ফোনালাপ ফাঁস হয়েছে।

মঙ্গলবার রাত ৯টার পরে বিশ্ব কবি রবীন্দ্রনাথ ঠাকুর হলের অভ্যত্থনা কক্ষে সংবাদ সম্মেলনে এই তিন জনের ফোনের সেবা বন্ধ রাখার বিষয়টি প্রকাশ করেন।

সংবাদ সম্মেলনে সাদ্দাম হোসেন বলেন, ‘রাব্বানীর সাথে ফোনালাপ ফাঁস হওয়ার পর সোমবার থেকে আমাকে অপরিচিত নাম্বর থেকে ফোন দিয়ে নানা ধরণের হুমকি দেওয়া হচ্ছে। আমাকে হল ছেড়ে অন্যত্রে চলে যেতে বলা হচ্ছে। ছাত্রলীগের নেতারা আমার ওপর ক্ষিপ্ত বলেও দাবি করেছেন ওই ব্যক্তি।’

তিনি আরো বলেন, ‘মঙ্গলবার বিকাল সাড়ে চারটা থেকে আমার ফোন সিমের সব ধরণের সেবা বন্ধ রাখা হয়েছে। আমি কাস্টমার কেয়ারে ফোন দিয়েছিলাম। তারা আমাকে বলেছে- আপনার সিমটা বন্ধ রাখা হয়েছে। তবে কেন, কি কারণে বন্ধ রাখা হয়েছে সেটা কাস্টমার কেয়ার বলতে পারিনি’। এমতাবস্থায় তিনি চরম নিরাপত্তাহীনতায় ভুগছেন বলেও দাবি করেন। সংবাদ সম্মেলনে নিয়ামুল হাসান তাজও উপস্থিত ছিলেন।

অপরদিকে বিশ্ববিদ্যালয়ে দুর্নীতির বিরুদ্ধে চলমান আন্দোলনে যে সব শিক্ষক প্রকাশ্য-অপ্রকাশ্যভাবে সক্রিয় ভূমিকা পালন করছেন তাদের মধ্যে অন্তত ৭ শিক্ষকদের ফোন সিমের কার্যকারিতা বন্ধ রাখা হয়েছে বলে জানা গেছে। সাবেক উপাচার্য অধ্যাপক শরীফ এনামুল কবির, উপ-উপাচার্য (প্রশাসন) অধ্যাপক আমির হোসেন, অধ্যাপক সাঈদ ফেরদৌস, অধ্যাপক রায়হান রাইন, অধ্যাপক জামাল উদ্দিন রুনু, অধ্যাপক শামীমা সুলতানা ও অধ্যাপক তারেক রেজা এই সাত শিক্ষকের ফোন সিম নিষ্ক্রিয় রয়েছে। মঙ্গলবার রাত সাড়ে নয়টার পর এই সাত শিক্ষকের ফোনে কল দিলে ফোন বন্ধ দেখায়।

ফোন সিমের সেবা বন্ধ রাখার বিষয়ে অধ্যাপক সাঈদ ফেরদৌস বলেন, ‘একটি স্বাধীন গণতান্ত্রিক দেশে এভাবে মানুষের যোগাযোগকে রুদ্ধ করাটা অন্যায়। এটা রাষ্ট্র তখন করতে পারে যদি রাষ্ট্রবিরোধী কিছু করা হয়। কিন্তু যারা একটা অনিয়মের তদন্ত চাচ্ছে তাদের প্রতি এই ধরনের আচরণ সভ্য দেশে কাম্য হতে পারে না’

বিশ্ব কবি রবীন্দ্রনাথ ঠাকুর হলের অফিস রুমে প্রাধ্যক্ষ অধ্যাপক আব্দুল্লাহ হেল কাফি সাংবাদিকদের বলেন, আমরা জানাতে পেরেছি বুধবার মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ঢাকা-আরিচা মহাসড়ক দিয়ে ক্যাম্পাস এরিয়া অতিক্রম করবেন। এজন্য আমরা সর্বোচ্চ সতর্কতা অবলম্বন করছি। বিশ্ববিদ্যালয়ের হলের সাথে সংশ্লিষ্ট শিক্ষকদেরকে রাত ১২টা পর্যন্ত হলে অবস্থান করতে বলা হয়েছে। হলের আবাসিক শিক্ষর্থীদেরকে নিরাত্তার বিষয়ে আমরা অবগত আছি।’
তবে ফোন সিমের সেবা বন্ধ রাখার বিষয়ে বিশ্ববিদ্যালয় কর্তৃপক্ষ কিছুই জানে না বলে জানিয়েছেন প্রক্টর আ স ম ফিরোজ-উল-হাসান।

আন্দোলনকারী শিক্ষকদের মুঠোফোন সিমের সেবা বন্ধ রাখায় বুধবার প্রশাসনে সাথে নির্ধারিত আলোচনায় বসবেন কিনা সে বিষয়টি মঙ্গলবার রাত সাড়ে ১১টা পর্যন্ত নিশ্চিত হয়নি। মঙ্গলবার রাতে ‘দুর্নীতির বিরুদ্ধে জাহাঙ্গীরনগর’ ব্যানারে আন্দোলনরত শিক্ষক-শিক্ষার্থীরা বৈঠক করছিলেন। কিন্তু এই রিপোর্ট লেখা পর্যন্ত (১১টা ১১মিনিট) আলোচনায় বসবে কিনা সে সিদ্ধান্ত চুড়ান্ত করতে পারেনি।

নিউজ গার্ডিয়ান/ এমএ/