আবরার হত্যার বিচারের দাবিতে জাবি শিক্ষার্থীদের মোমবাতি প্রজ্জলন

বাংলাদেশ প্রকৌশল বিশ্ববিদ্যালয়ের ( বুয়েট) শিক্ষার্থী আবরার ফাহাদ হত্যার বিচারের দাবিতে মোমবাতি প্রজ্জলন করেছে জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়ের সাধারন শিক্ষার্থীরা।

বুধবার (০৯ অক্টোবর) সন্ধা সাড়ে ছয়টায় বিশ^বিদ্যালয়ের শহীদ মিনারে এই কর্মসূচি পালন করেন আন্দোলনকারী সাধারন মিক্ষার্থী বৃন্দ।

এ সময় আন্দোলকারীরা জানান কেন্দ্রীয় আন্দোলনের কর্মসূচি হিসাবে তারা এই কর্মসূচি পালন করেন।

সাংবাদিকতা ও গনমাধ্যম অধ্যয়ন বিভাগের ৪৩ তম আবর্তনের শিক্ষার্থী জয়নাল আবেদীন শিশির বলেন,‘কেমন অনুভব হয় যখন একটা মানুষকে পিটিয়ে পিটিয়ে হত্যা করা হয়। তার কেমন আকুতি ছিল নিজেকে বাচাঁনোর। তারা কেমন মানুষ? যে একট মানুষকে হত্যা করে খাবার খেতে যায়, রাতে খেলা দেখতে যায়। এরা মানুষের কাতারে পড়ে না। আমরা বলতে চাই এইটা কোন সাধারন হত্যা না এইটা একটা পরিকল্পিত হত্যা। আবরারের হত্যায় জড়িতদের দ্রুত বিচারের আওতায় এনে দৃষ্টান্ত মূলক শাস্তি দিতে হবে।

বোটানী বিভাগের ৪৩ তম আবর্তনের শিক্ষার্থী আরিফুল ইসলাম বলেন,‘ আবরার হত্যা জাতির জন্য একটি প্রতীক বহন করে। আবরার শুধু অন্যায়ের সমালচনা করার কারনেই আজ তাকে প্রান দিতে হল। এইটা কোন সাধারন হত্যা নয় এইটা একটা পরিকল্পিত হত্যা। যারা আবরারকে হত্যা করার পরিকল্পনা করছে তাদের সবাইকে বিচারের আওতায় আনতে হবে। তারা আবরারকে হত্যা করে জাতিকে জানিয়ে দিতে চায় যে তাদের বিরুদ্ধে কেউ কিছুই বললেই তাদের এই অবস্থাা হবে। আমরা বলতে চাই এই দেশের ছাত্র সমাজ এমন কাজ সহ্য করবেনা তারা এই কাজের সমুচিত জবাব দিবে।’

আইন ও বিচার বিভাগের ৪২ তম আবর্তনের শিক্ষার্থী ফারহাদ হারেছ ভূইয়া বলেন,‘ আমরা এমন একটই দেশে বাস করছি যেখানে বাক স্বাধীনতা বলতে কিছুই নাই।ছাত্র লীগ আজকে দেশে তাশের রাজত্য কায়েম করছে। স্বাধীনতার পর থেকে যে সকল হত্যা করা হয়েছে এই সব খুন এর বিচার না হওয়ার কারনে আজকে তারা আরো বেশি সাহস পাচ্ছে। আমরা বলতে চাই এই হত্যার বিচার করতে হবে এবং এর কার্যকর করতে হবে। আবরার হত্যার বিচার হয়ে যদি তা কার্যকর না হয় তাহলে আমারা সেটা মেনে নিব না। আমরা বলতে চাই খুনি দের বহিস্কার করুন। যারা এখনো আটক হয় নাই তাদেরকে আটক করে দ্রুত বিচারের আওতায় আনতে হবে।’

সমাপনী বক্তব্যে বোটানী বিভাগের ৪২ তম আবর্তনের শিক্ষার্থী শাকিল-উজ-জ্জামান বলেন, ‘ আমরা আজকে এমন এক সময় পার করছি যখন কেউ নিরাপদ না। যে কোন সময় যে কাউকেই ছাত্রলীগের সন্ত্রাসীরা হত্যা করতে পারে। আমরা আজকে এখান থেকে বলতে চাই আবরার হত্যার সাথে জড়িত বাকী খুনিদের দ্রুত আটক করে বিচারের আওতায় আনতে হবে। ভারতের সাথে যে সকল চুক্তি করা হয়েছে তা বাতিল করতে হবে’।

নিউজ গার্ডিয়ান/ এমএ/