আমিরাতকে আরও বড় বিনিয়োগের আহ্বান প্রধানমন্ত্রীর

তৈরি পোশাক, তথ্য-প্রযুক্তি ও বিশেষ অর্থনৈতিক অঞ্চলসহ বাংলাদেশের বিভিন্ন সম্ভাবনাময় খাতে সরকারি ও বেসরকারি পর্যায়ে ইউএই’র উদ্যোক্তাদের বড় আকারের বিনিয়োগের আহ্বান জানিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা।

স্থানীয় সময় রবিবার রাতে আবুধাবিতে হোটেল সাংরি-লা’তে প্রধানমন্ত্রীর সম্মানে সংযুক্ত আরব আমিরাতের বাংলাদেশ দূতাবাস আয়োজিত সংবর্ধনা ও নৈশভোজে অংশ নিয়ে তিনি এসব কথা বলেন।

শেখ হাসিনা বলেন, ‘আমাদের সরকার অর্থনৈতিক অঞ্চলে, বিশেষ অর্থনৈতিক অঞ্চলগুলোতে ও হাইটেক পার্কে বিদেশি বিনিয়োগ আকর্ষণের উদ্যোগ গ্রহণ করেছে।’

একইসঙ্গে বাংলাদেশ অর্থনৈতিক অঞ্চল কর্তৃপক্ষ (বেজা) বিনিয়োগকারীদের জন্য ‘ওয়ান স্টপ’ সার্ভিস সুবিধা ও ১০০টিও বেশি অবকাঠামোগত সুবিধাদি দিচ্ছে বলেও জানান প্রধানমন্ত্রী।

তিনি বলেন, ‘দক্ষিণ এশিয়ার দেশগুলোর মধ্যে বাংলাদেশে বিনিয়োগ নীতি সবচেয়ে সহনীয় পর্যায়ে।’

এসময় তিনি সংযুক্ত আরব আমিরাতের বিনিয়োগকারীদের তৈরি পোশাক শিল্প, ভবন অবকাঠামো নির্মাণ, নির্মাণ শিল্প, যোগাযোগ, জ্বালানি, তথ্য-প্রযুক্তি, জাহাজ নির্মাণ, পর্যটন, হালকা প্রকৌশল, শিল্প পার্ক ও পণ্য সরবরাহের কেন্দ্র হিসেবে আরও বড় আকারের বিনিয়োগের আহ্বান জানান।

বর্তমানে বাংলাদেশে বিদ্যমান বৈদেশিক বিনিয়োগ সুরক্ষা নীতিমালার কথা উল্লেখ করে প্রধানমন্ত্রী বলেন, ‘তৈরি পোশাকের পরেই আমাদের রফতানি ক্ষেত্রে কৃষিভিত্তিক পণ্য উল্লেখযোগ্য। আমরা আরব আমিরাতের উদ্যোক্তাদের বাংলাদেশে কৃষিজাত ও খা্য প্রক্রিয়াজাতকরণ শিল্পে বিনিয়োগকে স্বাগত জানাই।’

এসময় তিনি বাংলাদেশ ও আরব আমিরাতের মধ্যে পারস্পরিক ব্যবসা ও বিনিয়োগের ক্ষেত্রে অপার সম্ভাবনার কথা উল্লেখ করেন।

তিনি বলেন, ‘আমি আশা করি, বাংলাদেশ ও আরব আমিরাতের মধ্যে পারস্পরিক বাণিজ্য ধারাবাহিকভাবে বৃদ্ধি পাচ্ছে। আমাদের উদ্যোগের ফলে দু’দেশের দ্বিপাক্ষিক বাণিজ্যের বহুমুখীকরণ হবে ও সম্প্রসারণ ঘটবে।’

অনুষ্ঠানে পররাষ্ট্রমন্ত্রী ড. এ কে আব্দুল মোমেন ও সংযুক্ত আরব আমিরাতে বাংলাদেশের রাষ্ট্রদূত মোহাম্মদ ইমরান বক্তব্য দেন।

এসময় ইউএই’র ব্যবসায়ী সংস্থার প্রতিনিধিগণ, তাদের সরকারের শীর্ষ কর্মকর্তাবৃন্দ, শীর্ষ উদ্যোক্তা ও গণমাধ্যম ব্যক্তিবর্গ উপস্থিত ছিলেন।

বিশ্বের অন্যতম বৃহৎ ও গুরুত্বপূর্ণ উড়োজাহাজ প্রদর্শনী ‘দুবাই এয়ার শো’র উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে যোগ দিতে ৪ দিনের রাষ্ট্রীয় সফরে গত শনিবার দুবাই পৌঁছান প্রধানমন্ত্রী। সফর শেষে আগামী ১৯ নভেম্বর দেশে ফিরবেন তিনি।